শিরোনাম:
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮

Shikkha Bichitra
সোমবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২০
প্রথম পাতা » » শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ
প্রথম পাতা » » শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ
৭৭৪১৮ বার পঠিত
সোমবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজ

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস আজআজ ১৪ ডিসেম্বর, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে দখলদার পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তার দোসর রাজাকার আল-বদর, আল-শামস মিলিতভাবে পরিকল্পনা করে বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার বাণীতে বলেন, জাতির অবিসংবাদিত নেতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বহু আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জাতিকে মুক্তিসংগ্রামের জন্য প্রস্তুত করেন। তারই আহ্বানে ১৯৭১ সালে দীর্ঘ ৯ মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ছিনিয়ে আনে চূড়ান্ত বিজয়। পাক বাহিনী নিশ্চিত পরাজয় আঁচ করতে পেরে জাতিকে মেধাশূন্য করার উদ্দেশ্যে রাজাকার-আল বদর-আল শামস বাহিনীর সহযোগিতায় ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর দেশের প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ, চিকিৎসক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, শিল্পীসহ বহু গুণীজনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। জাতি হারায় তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। আমাদের স্বাধীনতার ইতিহাসে এ এক কলঙ্কজনক অধ্যায়।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বুদ্ধিজীবীরা দেশ ও জাতির উন্নয়ন ও অগ্রগতির রূপকার। তাদের সৃজনশীল কর্মকাণ্ড ও গণতান্ত্রিক চিন্তাচেতনা জাতীয় অগ্রগতির সহায়ক। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য, বিজয়ের প্রাক্কালে হানাদারবাহিনী পরিকল্পিতভাবে এ দেশের খ্যাতনামা বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। যা ছিল জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

বাণিতে রাষ্ট্রপতি আরো বলেন, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের রেখে যাওয়া আদর্শ ও পথকে অনুসরণ করে অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক সুখি-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে পারলেই তাদের আত্মত্যাগ সার্থক হবে।

পৃথক এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলঙ্কময় দিন। মহান মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিনগুলোতে পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি ও তাদের দোসররা পরাজয় নিশ্চিত জেনে বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করতে বাঙালি বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। স্বাধীনতার বিরোধীরা এ পরিকল্পিত নৃশংস হত্যাযজ্ঞের মধ্য দিয়ে পরাজয়ের প্রতিশোধ নেয়। বাংলাদেশ যাতে আর কখনো মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে, সেটাই ছিল এ হত্যাযজ্ঞের মূল লক্ষ্য।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একাত্তরের ঘাতক, মানবতাবিরোধী, যুদ্ধাপরাধী চক্রের সব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে নিজ অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

এবার করোনা আবাহের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের কর্মসূচি পালিত হবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জাতীয় ও কালো পতাকা অর্ধনমিত রাখা, মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ ও রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন।

একাত্তরে বুদ্ধিজীবীদের বেছে বেছে হত্যার ঘটনা বিশেষ তাৎপর্য বহন করে। তারা শহীদ হন এক সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে। বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করার লক্ষ্যে বুদ্ধিজীবী নিধনের এ পরিকল্পনা করে হানাদার বাহিনী। তালিকাভুক্ত বুদ্ধিজীবীদের রাতের আঁধারে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে চোখ বেঁধে হত্যা করে।

অপারেশন সার্চ লাইটের নামে একাত্তরের ২৫ মার্চ পাক বাহিনী যখন বাঙালি নিধনে নামে তখনই বুদ্ধিজীবীদের হত্যার আশঙ্কা দেখা দেয়।

একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী ও বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেকের বিচারের রায় কার্যকর হয়েছে। এরই মধ্যে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত অনেকের বিরুদ্ধে ফাঁসির রায় ঘোষিত হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানের এ দেশীয় দোসর আল-বদরের সাহায্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ও বিভিন্ন স্থান থেকে শিক্ষক, সাংবাদিক, চিকিৎসক, সংস্কৃতি কর্মীসহ বিভিন্ন পেশার বরেণ্য ব্যক্তিদের অপহরণ করা হয়। পরে তাদের নিদারুণ যন্ত্রণা দিয়ে রায়ের বাজার ও মিরপুরে হত্যা করা হয়। এ দুটি স্থান এখন বধ্যভূমি হিসেবে সংরক্ষিত।

একাত্তরের ১০ থেকে ১৪ ডিসেম্বরের মধ্যে আল-বদর বাহিনী আরো অনেক বুদ্ধিজীবীকে ধরে নিয়ে মোহাম্মদপুর ফিজিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে স্থাপিত আল-বদর ঘাঁটিতে নির্যাতনের পর রায়ের বাজার বধ্যভূমি ও মিরপুর কবরস্থানে নিয়ে হত্যা করে।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে রয়েছেন- অধ্যাপক মুনির চৌধুরী, অধ্যাপক মুনিরুজ্জামান, ড. ফজলে রাব্বী, শহীদুল্লাহ কায়সার, অধ্যাপক জিসি দেব, অধ্যাপক সন্তোষ ভট্টাচার্য, অধ্যাপক গিয়াস উদ্দিন, অধ্যাপক আনোয়ার পাশা, অধ্যাপক রশীদুল হাসান, ড. আবুল খায়ের, ড. মুর্তজা, সাংবাদিক খন্দকার আবু তাহের, এসএ মান্নান (লাডু ভাই), এএনএম গোলাম মোস্তফা, সেলিনা পারভিনসহ অনেকে।



এ পাতার আরও খবর

কুয়েটে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহণ কুয়েটে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহণ
২৬ ডিসেম্বর থেকে অনলাইনে সাত কলেজের পরীক্ষা শুরু ২৬ ডিসেম্বর থেকে অনলাইনে সাত কলেজের পরীক্ষা শুরু
কাল থেকে শুরু হচ্ছে মাধ্যমিকে ভর্তির আবেদন কাল থেকে শুরু হচ্ছে মাধ্যমিকে ভর্তির আবেদন
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা: নতুন নীতিমালার আওতায় আসছে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা: নতুন নীতিমালার আওতায় আসছে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশে আইসিটি এন্ড সফট স্কীল ডেভেলোপমেন্ট ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশে আইসিটি এন্ড সফট স্কীল ডেভেলোপমেন্ট ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত
এনএসইউ’তে “বাংলাদেশের নারীদের উপর কোভিড-১৯ মহামারি এর আর্থ-সামাজিক প্রভাব” শীর্ষক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত এনএসইউ’তে “বাংলাদেশের নারীদের উপর কোভিড-১৯ মহামারি এর আর্থ-সামাজিক প্রভাব” শীর্ষক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত
বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবেদন প্রেক্ষিতে ৪৩তম বিসিএস আবেদনের সময় বাড়ানোর ব্যাপারে বিবেচনা করবে পিএসসি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবেদন প্রেক্ষিতে ৪৩তম বিসিএস আবেদনের সময় বাড়ানোর ব্যাপারে বিবেচনা করবে পিএসসি
আগামী বছর অমর একুশে গ্রন্থমেলা হতে পারে অনলাইনে আগামী বছর অমর একুশে গ্রন্থমেলা হতে পারে অনলাইনে

আর্কাইভ